পরকীয়ার কারণে তালাক, হাতেনাতে ধরা খেয়ে ধর্ষণ মামলা

7

ফেনীর সোনাগাজীতে তালাকপ্রাপ্ত নারীকে ধর্ষণ মামলায় আবু সায়েদ তারেক নামে এক যুবককে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। পরকীয়ার কারণে ওই নারীকে তালাক দেন প্রবাসী স্বামী।

শনিবার মধ্যরাতে উপজেলার চরদরবেশ ইউনিয়নের চরসাহাভিকারী গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আবু সায়েদ তারেক চরদরবেশ ইউনিয়নের চরসাহাভিকারী গ্রামের হাজীবাড়ির আবুল বশরের ছেলে। পুলিশ, ভুক্তভোগীর পরিবার ও এলাকাবাসী জানান, পাঁচ বছর পূর্বে এক প্রবাসীর সঙ্গে ওই নারীর বিয়ে হয়েছিল। তার ঘরে একটি পুত্রসন্তানও রয়েছে। চার বছর আগে থেকেই আবু সায়েদ তারেক ওই নারীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে। তাদের প্রেমের সম্পর্ক জানার পর গত সাড়ে তিন বছর পূর্বে ওই নারীর স্বামী তাকে তালাক দেন।

দীর্ঘ চার বছর যাবত ওই নারীকে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তারেক একাধিকবার ধর্ষণ করে আসছে। সর্বশেষ গত ৬ নভেম্বর রাত ১১টায় একই আশ্বাসে ওই নারীকে ধর্ষণ করে তারেক। একই প্রলোভনে ২০ নভেম্বর শনিবার রাত ১১টার দিকে ওই নারীকে ধর্ষণ করতে তার শয়ন কক্ষে প্রবেশ করে তারেক। এ সময় স্থানীয়রা টের পেয়ে ওই যুবককে আটক করে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেন।

এ ঘটনায় ওই নারী বাদী হয়ে আবু সায়েদ তারেককে একমাত্র আসামি করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। রোববার দুপুরে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ওই নারীর শারীরিক পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। সোনাগাজী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবদুর রহিম সরকার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।